বর্তমান বিশ্বে মেকানিক্যাল টেকনোলজিকে Mother টেকনোলজি নামে আখ্যায়িত করা হচেছ। পৃথিবীতে উন্নত রাষ্ট্রগুলো উন্নত হচ্ছে এবং উন্নয়নশীল রাষ্ট্রগুলো উন্নতির দিকে ধাবিত হচেছ। তাই যুগের সাথে তালমিলিয়ে চলতে হচ্ছে। মেকানিক্যাল টেকনোলজিতে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে হবে। বর্তমান সভ্যতায় সকল আধুনিক যন্ত্রপাতি পরিচালনার জন্য মেকানিক্যাল টেকনোলজির অবদান অপরিসীম এবং এর গুরুত্ব চিরকাল থাকবে। ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিক্স , কম্পিউটার, টেক্সটাইল, সিভিল টেকনোলজি এর সিংহভাগ মেকানিক্যাল টেকনোলজির সাথে অতোপ্রতভাবে জড়িত। উন্নত জীবন যাপনের জন্য মানুষের প্রতিটি মুহুর্তেই মেকানিক্যাল টেকনোলজির যন্ত্রপাতির সাথে জড়িত। বাস্ত্রব ক্ষেত্রে আমরা দেখতে পাই মেডিকেল ইনস্ট্রুমেন্ট ইলেকট্রনিক্স ও কম্পিউটারাইজ যন্ত্রপাতি সব কিছুই মেকানিক্যাল টেকনোলজিতে পড়ে। তাই মেকানিক্যাল টেকনোলজিতে ডিপ্লোমা ধারীর জন্য অপেক্ষা করছে নিশ্চিত ভবিষ্যত।

Mechanical Technology

  • Hydraulics Lab
  • Computer Lab
  • Drawing Lab
  • Physics & Chemistry Lab
  • Machine Shop Lab
  • Welding Lab
  • দেশের বৃহত্তম সরকারী প্রতিষ্ঠানঃ Roads and Highway Department (R & HD), Public Work Department (PWD), LGED, BADC ইত্যাদিতে Sub Assistant Engineer পদে চাকরির সুযোগ রয়েছে
  • দেশের বৃহত্তম অন্যান্য সরকারি নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিষ্ঠান যেমন- পরমানু শক্তি কমিশন, Water Development Board (WDB), Power Development Board(PDB), DESCO, BRTC, PGCB, WASA, বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ পাট উন্নয়ন বোর্ড, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন ও বিভিন্ন গ্যাস ফিল্ড ইত্যাদিতে Sub Assistant Engineer পদে চাকরির সুযোগ রয়েছে
  • দেশের বিভিন্ন Textile Sector, Medical Instrument, TV Channel, Garments Industry, Automobile Company, ওষুধ কোম্পানী, সিমেন্ট ও রড কোম্পানী ও যে কোন ইন্ডাস্ট্রিয়াল ফ্যাক্টরীতে চাকরির সুযোগ রয়েছে
  • এছাড়াও সরকারি বেসরকারি সকল স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, এসএসসি ভোকেশনাল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের জুনিয়র ইন্সট্রাক্টর পদে চাকরির সুযোগ রয়েছে
  • দেশের বাইরে কর্মসংস্থানের প্রচুর সুযোগ রয়েছে
  • বিএসসি ইন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং
  • এদেশে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের উচ্চ শিক্ষার জন্য পৃথক একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে। ডুয়েট, গাজীপুর।
  • A.M.I.E কোর্সের সুযোগ রয়েছে
  • SSC / সমমান পরীক্ষায় যেকোন গ্রুপ থেকে জিপিএ ২.৫০ পেয়ে উত্তীর্ণ। ২০১০-২০১৭ সালের পাশকৃত ছাত্র-ছাত্রীরা আবেদন করতে পারবে।
  • HSC (ভোকেশনাল) উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা ক্রেডিট ট্রান্সফারের মাধ্যমে শূন্য আসনে ৪র্থ পর্বে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবে।
  • HSC (বিজ্ঞান) উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা শূন্য আসনে ৩য় পর্বে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবে।